ফ্রান্সে সম্প্রতি ক্লাসরুমে মহানবী (সাঃ) এর কার্টুন দেখানোয় একজন স্কুল শিক্ষকের শিরচ্ছেদের ঘটনার পর ইসলাম ধর্ম নিয়ে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রঁ’র সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্যের প্রতিবাদে বাংলাদেশ, সৌদি আরব, ইরান, তুরুস্কসহ বিভিন্ন মুসলিম দেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

এছাড়া চলতি মাসের শুরুর দিকে ফরাসি রাষ্ট্রপতি এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ইসলাম “সংকটে” রয়েছে বলে মন্তব্য করেন। এই মন্তব্যে মুসলিম দেশগুলোর অনেকেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। এমকি ফ্রান্সের পণ্য বয়কটেরও ডাক দিয়েছেন তারা । তুর্কী প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ  এরদোগান রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বক্তব্য প্রদান করার সময় ফ্রান্সের লেবেল যুক্ত সকল পণ্য বয়কট আহবান জানান। ফরাসি রাষ্ট্রপতিকে মানসিক চিকিৎসা নেবারও পরামর্শ দেন তিনি।

এছাড়া পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আগেই ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁর কড়া সমালোচনা করেছেন। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জারিফও কড়া সমালোচনা করেন প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁর । তাঁর মতে, মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুনকে সমর্থন করে মাক্রোঁ চরমপন্থীদের উৎসাহিত করছেন।

এছাড়া কাতার, কুয়েতসহ অন্যান্য মুসলিম রাষ্ট্রগুলো ফ্রান্স-এর পণ্য বয়কট করা শুরু করেছে। বিভিন্ন স্থানে ম্যাক্রোর ছবি পুড়িয়ে অনেকেই প্রতিবাদ করছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

ফ্রান্সে পশ্চিম ইউরোপের সবচেয়ে বেশি মুসলিম বাস করে। কেউ কেউ অভিযোগ তুলছেন ফ্রান্স কর্তৃপক্ষ ধর্মনিরপেক্ষতাকে পুঁজি করে মুসলিমদের টার্গেট করছে।

তবে বিশ্ব মুসলিম নেতাদের ডাকে সাড়া দিয়ে যদি ফরাসী পণ্য বয়কট শরু হয় তবে ফ্রান্স বড় ধরনের অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুক্ষীন হবে বলে ধরণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে ফ্রান্সের সঙ্গে ইতালি, নেদারল্যান্ড, ইউরোপিয়ন ইউনিয়ন ফ্রান্সের পাশে আছে জানিয়ে সংহতি প্রকাশ করেছে।

Leave a Reply