মদনে ধর্ষিতা কিশোরীর কোলে নবজাতক সন্তান, ধর্ষক জেলে

নুরুল হক রুনু,মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি

নেত্রকোণার মদন উপজেলার ঘাটুয়া গ্রামের ধর্ষিতা কিশোরী (১৬) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ধর্ষণের প্রায় ১০ মাস শেষে গত ১৫ই নভেম্বর এক ছেলে সন্তান জন্ম দিয়েছে ।সে ঘাটুয়া গ্রামের লালচান মিয়ার মেয়ে।

পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা যায়,ধর্ষণের স্বীকার কিশোরীর সাথে প্রতিবেশী নয়ন তালুকদারের ছেলে রবি মিয়ার (১৮) মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এই সুবাদে গত ১লা ফেব্রুয়ারি ২০২০ ইং তারিখে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীর সঙ্গে দৈহিক মিলনে মিলিত হয় রবি। এ মিলনের পর কিশোরী অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পরে। এ অবস্থায় কিশোরী প্রেমিক রবি মিয়াকে বিয়ে করার কথা  বললে, সে অস্বীকার করে। ঘটনাটি কিশোরী তার পরিবারকে জানালে গ্রামীণভাবে ঘটনাটি আপোষ-মীমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। কিশোরীর পিতা লালচান মিয়া গত ১৬ জুন মদন থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে ১৯ জুন তারিখে ধর্ষক রবি মিয়াকে আটক করে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ। প্রধান আসামি বতর্মানে জেলহাজতে রয়েছে।

ধর্ষিতা কিশোরী বলেন, আমি সন্তানের বাবার স্বীকৃতি চাই। গত ১৫ই নভেম্বর  রোববার ভোরে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ধর্ষিতা কিশোরী এক ছেলে সন্তান প্রসব করেছে। কিশোরীর পিতা জানান, আমি গরীব মানুষ কি করবো ভেবে পাচ্ছি না। ছেলের পরিবার এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় আমাকে বিভিন্ন সময় মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে।আমি,আমার মেয়ে এবং নাতির সামাজিক স্বীকৃতি চাই।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস,আই মোঃ জসিম উদ্দিন জানান, ধর্ষিতার এক ছেলে সন্তান হয়েছে। ধর্ষক ও সন্তানের ডিএনএ পরীক্ষা পর অভিযোগ পত্র আদালতে দাখিল করা হবে। তাছাড়া আমি নিয়মিত মা ও সন্তানের খোঁজখবর রাখছি। 

Leave a Reply