চীন তাইওয়ানকে কড়া ভাষায় সাফ জানিয়ে দিল স্বাধীনতা চাইলেই বাধবে যুদ্ধ। তাদের সশস্ত্র বাহিনী যে কোনো ধরনের উস্কানিমূলক এবং বিদেশী হস্তক্ষেপের প্রতিক্রিয়া জানাবে বলে সতর্ক করল চীন।

তাইওয়ানকে চীনের অংশ বলে দাবি করে চীন। সম্প্রতি একাধিক চীনা যুদ্ধবিমান এবং বোমারু বিমান তাইওয়ানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় বিমান প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে প্রবেশ করায় উদ্বিগ্ন ওয়াশিংটন।

চীন বিশ্বাস করে যে তাইওয়ানের গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার এই দ্বীপটিকে আনুষ্ঠানিক স্বাধীনতার ঘোষণার দিকে নিয়ে যাচ্ছে, যদিও রাষ্ট্রপতি সোসাই ইনগ-ওয়েন বারবার বলেছেন- তারা ইতিমধ্যে চীন প্রজাতন্ত্র নামে পরিচিত একটি স্বাধীন দেশ।

বিমান বাহিনীর সাম্প্রতিক কার্যক্রম সম্পর্কে মাসিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানতে চাইলে চীনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মুখপাত্র উ কিয়ান বলেন, তাইওয়ান চীনের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ।

তিনি বলেন, “তাইওয়ান সমুদ্র উপকূলের চীনা জনগণের লিবারেশন আর্মির পরিচালিত সামরিক কার্যক্রম তাইওয়ান জলস্রোতের বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব সুরক্ষায় এটি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।”

তিুন আরো বলেন, ‘তাইওয়ান স্বাধীনতা’ বাহিনীর বাহ্যিক হস্তক্ষেপ এবং উস্কানির প্রতিক্রিয়ায় চীনের এই পদক্ষেপ।

মি. উু বলেন যে তাইওয়ানের “মুষ্টিমেয়” লোকেরা এ দ্বীপের স্বাধীনতা চায়।

“আমরা সেই তাইওয়ান স্বাধীনতাকামীদেরকে সতর্ক করে দিয়েছি: যারা আগুন নিয়ে খেলবে তারা নিজেরাই পুড়বে, এবং তাইওয়ানের স্বাধীনতা মানে যুদ্ধ!

Leave a Reply