মহাকাশে প্রাণের অস্তিত্বের সাথে মিলল কার্বন অনুর সন্ধান।

নতুনপাতা : মহাবিশ্বে কবে প্রাণের জন্ম হয়েছিল? জটিল কার্বন বহনকারী অনু গুলো বিশ্লেষেন করলে বোঝা যায়।এই তথ্য বিজ্ঞানীদের গবেষনার কাজে সহায়তা করে। এই অণুগুলিকে বলে পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন বা PAHs। কার্বন এবং হাইড্রোজেনের মধ্যে ষড়ভুজ আকৃতির রিং তৈরী করে।কয়েক দশক ধরে বিজ্ঞানীরা ধারনা করছেন মহাকাশে এই অনু গুলো অনেক পরিমানে রয়েছে।এর আগে বিজ্ঞানীরা মহাকাশে সিঙ্গেল রিং আকারে অনু দেখা পেয়েছে বিজ্ঞানীরা। তবে এবার একটু ভিন্নতা পেয়েছে বিজ্ঞানীরা যেটিকে পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন বা PAHs বলে। এই অনু গবেষনা করে বিজ্ঞানীরা ধারনা করতে পেরেছে মহাকাশে প্রাণের সৃষ্টি সম্পর্কে। ১৯৮০ এর দশকে বিজ্ঞানীরা ছায়াপথ এবং মহাকাশের অন্যান যায়গা থেকে ইনফ্রারেড জ্বলতে দেখেছেন। তারা মনে করছেন এই ইনফ্রারেড জ্বলন্ত উজ্জলতা PAHs থেকে আসে। তবে বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত এর নির্দিষ্ট উৎস খুজে পায়নি। তারপরেও বিজ্ঞানীরা ইনফ্রারেড সংকেত গুলি অনুসরন করেন বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানীরা এই তরঙ্গগুলি সিঙ্গেল ভয়েস রেডিও তরঙ্গে রুপান্তরিত করেন। এবং দেখা যায় এই তরঙ্গ গুলি বিভিন্ন সুরে বাজতেছে। এই দলটি পশ্চিম ভার্জিনিয়ায় শক্তিশালী গ্রীন ব্যাংক টেলিস্কোপ টিএমসি -১ এর সাহায্যে পর্যবেক্ষণ করে। বিজ্ঞানীরা যা অনুমান করেছিলেন তার থেকে বেশি পরিমানে মহাকাশে PAHS রয়েছে। দুটি উপায়ে মহাকাশে এই গুলি তৈরী হয়। কটি মৃত নক্ষত্রের ছাই থেকে বা আন্তঃকেন্দ্রীয় স্থানের সরাসরি রাসায়নিক প্রতিক্রিয়া থেকে। আগে বিজ্ঞানীদের কাছে এটি শুধুমাত্র অনুমান ছিল তবে বর্তমানে এটি খুঁজে পাওয়ার পরে গবেষনার কাজে বিজ্ঞানীদের অনেক সহায়তা করবে বলে ধারনা বিজ্ঞানীদের।

Leave a Reply